1. aponi955@gmail.com : Apon Islam : Apon Islam
  2. mdarifpress@gmail.com : Nure Alam Siddky Arif : Nure Alam Siddky Arif
  3. hasanchy52@gmail.com : hasanchy :
  4. sandhanitv@gmail.com : Kamrul Hasan : Kamrul Hasan
  5. glorius01716@gmail.com : Md Mizanur Rahman : Md Mizanur Rahman
  6. mrshasanchy@gmail.com : Riha Chy : Riha Chy
বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:০৫ অপরাহ্ন

জীবনের স্বপ্ন দেখাতে এসে সন্ত্রাসীর হাতে প্রাণ হারালেন মেরিট

  • প্রকাশ: রবিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৩৫ বার দেখা হয়েছে



সন্ত্রাসীদের পুনর্বাসনে নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন ইউনিভার্সিটি অব কেমব্রিজের কোর্স সমন্বয়ক ডেভিড মেরিট। তিনি লার্নিং টুগেটারের পক্ষে জেল থেকে যেসব সন্ত্রাসী মুক্তি পেয়েছেন তাদেরকে জীবনের গল্প শোনাতেন। জীবনকে সুন্দর করে সাজানো শিখাতেন। তিনি ছিলেন লার্নিং টুগেটারে জেলমুক্ত সন্ত্রাসীদের পুনর্বাসন কর্মসূচিতে কোর্স সমন্বয়ক। তার কর্মসূচিতে যোগ দিয়েছিল সন্ত্রাসী উসমান খান। কিন্তু যে ডেভিড জ্যাক মেরিট তাকে উন্নত জীবনের স্বপ্ন দেখাতেন তাকেই উসমান ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেছে। শুক্রবার লন্ডন ব্রিজে তার ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন মেরিট। ওই সময় নিহত হয়েছেন আরো একজন নারী।

তবে তার পরিচয় এখনও প্রকাশ করা হয় নি। ডেভিড মেরিটকে স্মরণ করছেন সবাই। তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কর্মসূচি পালন করা হয়েছে কেমব্রিজে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি।

এতে বলা হয়েছে, ডেভিড জ্যাক মেরিট আইন ও অপরাধ বিজ্ঞানের একজন গ্রাজুয়েট। কর্মরত ছিলেন ইউনিভার্সিটি অব কেমব্রিজে জেল পুনর্বাসন বিষয়ক কর্মসূচিতে। এখানে তিনি ছিলেন কোর্স সমন্বয়ক। সেই হিসেবেই প্রজেক্ট হাতে নেয়া হয়। এর নাম দেয়া হয় লার্নিং টুগেদার। এখানে শিক্ষার্থী ও বন্দিদের একসঙ্গে পড়াশোনা করার সুযোগ দেয়া হয়। অপরাধে জড়িত হওয়া কমিয়ে আনার শিক্ষা দেয়া হয়। সহকর্মীরা বলেছেন, এ কাজে নিজেকে গভীরভাবে নিযুক্ত করেছিলেন মেরিট। শুক্রবার তাকে হত্যা করার পর শনিবার কেমব্রিজে তাই তাকে স্মরণ করা হয়েছে। সেখানে পরিবারের সদস্যরা, বন্ধুবান্ধব এবং তার সহকর্মীরা তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

ডেভিড জ্যাক মেরিটের স্কুলজীবনের বন্ধু এমিলি হুপার। তিনি বলেছেন, আমার জীবনে যত মানুষ দেখেছি তার মধ্যে সবচেয়ে অমায়িক মানুষের মধ্যে অন্যতম মেরিট। ডেইজি নক বলেছেন, মেরিট ছিলেন এই পৃথিবীর জন্য খুবই ভাল একজন মানুষ। তিনি ভাল কিছুর জন্য কাজ করতেন। তিনি এমন কিছুর জন্য কাজ করতেন যাতে একদিন এই পৃথিবীকে আমরা বদলে দিতে পারবো। আরেকজন বন্ধু বলেছেন, ইউনিভার্সিটি অব ম্যানচেস্টার এবং ইউনিভার্সিটি অব কেমব্রিজের গ্রাজুয়েটরা হন বিদগ্ধ এবং বুদ্ধিমান। আমাদের বয়সী অন্য অনেকের চেয়ে তাদের কাছে জীবনের অর্থ অনেক বড়। তাদের একটি সুস্থির পরিকল্পনা থাকে এই বিশ্বকে গড়ে তোলার, যেখানে তার কথা বলা হবে। র‌্যাপার ডেভ বলেছেন, মেরিট ছিলেন একজন সেরা মানুষ। তার মৃত্যুর খবরটা ছিল সবচেয়ে বেদনাদায়ক ঘটনাগুলোর অন্যতম। র‌্যাপার ডেভের ভাই ক্রিস্টোফার ওমোরগি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ভোগের সময় নিয়েছিলেন পুনর্বাসন বিষয়ক থেরাপি। এ থেকে উদ্বুদ্ধ হয়ে যে এলবাম তিনি করেছেন তা জিতেছে মারকুরি প্রাইজ। স্ট্রিথ্যামে জন্মগ্রহণকারী এই র‌্যাপার বলেন, মেরিট তার জীবন উৎসর্গ করেছিলেন অন্যদের জন্য। তার মতো একজনের সাক্ষাত পাওয়া আসলেই নিজেকে গর্বিত ভাবায়। তাকে কোনোদিন ভুলে যাবো না। কারণ, তিনি যা করে গেছেন তা কোনোদিন ভুলে যাওয়ার নয়। ওদিকে  অপরাধ বিচার বিষয়ক সম্প্রদায়ের সদস্যরা বলেছেন, মেরিটের মৃত্যুতে তারা গভীরভাবে শোকাহত।



শেয়ার করুন

এই বিভাগের অন্যান্য খবর
© All rights reserved © Sandhani TV
Theme Design by Hasan Chowdhury