1. aponi955@gmail.com : Apon Islam : Apon Islam
  2. mdarifpress@gmail.com : Nure Alam Siddky Arif : Nure Alam Siddky Arif
  3. hasanchy52@gmail.com : hasanchy :
  4. sandhanitv@gmail.com : Kamrul Hasan : Kamrul Hasan
  5. glorius01716@gmail.com : Md Mizanur Rahman : Md Mizanur Rahman
  6. mrshasanchy@gmail.com : Riha Chy : Riha Chy
বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:৫২ পূর্বাহ্ন

আমাকে গালি দিন, জনগণের সম্পত্তিতে আগুন দেবেন না: মোদি

  • প্রকাশ: সোমবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১৪৬ বার দেখা হয়েছে

ভারতে কোনো মুসলিম নাগরিককে আটকে রাখা হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভারতে কোনো বন্দিশিবির নেই বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। নতুন নাগরিকত্ব আইনের পরিপ্রেক্ষিতে ভারতজুড়ে চলমান বিক্ষোভ সম্পর্কে মোদি বলেছেন, বিক্ষোভকারীরা চাইলে তাঁকে গালাগাল করতে পারেন, কিন্তু জনগণের সম্পত্তি কোনোভাবেই নষ্ট করতে পারেন না।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আজ রোববার রাজধানী দিল্লির রামলীলা ময়দানে এক বিশাল শোভাযাত্রায় অংশ নিয়ে মোদি এসব কথা বলেন। চলমান বিক্ষোভের ফায়দা তুলতে কংগ্রেস ও তার মিত্র দলগুলো মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন মোদি।

মোদি বলেছেন, ‘কংগ্রেস ও কিছু শহুরে নকশাল দল গুজব ছড়াচ্ছে, ভারতের সব মুসলিম নাগরিককে বন্দিশিবিরে পাঠানো হবে। নিজেদের শিক্ষার প্রতি একটু মর্যাদা তো দেখান অন্তত! একবার নাগরিকত্ব সংশোধন আইন পুরোটা পড়ে দেখুন। ভারতের মুসলিম নাগরিকদের সঙ্গে নাগরিকত্ব আইন কিংবা এনআরসির কোনো সম্পর্কই নেই। কোনো মুসলিমকে বন্দিশিবিরে পাঠানো হচ্ছে না। ভারতে তো কোনো বন্দিশিবিরই নেই। এসব গুজব ছড়িয়ে ভারতকে দ্বিখণ্ডিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

তরুণদের পুরো আইনটা একবার পড়ে দেখারও আহ্বান জানিয়ে মোদি বলেছেন, ‘তরুণেরা আইনটি না পড়েই বিরোধীদের পাতা ফাঁদে পা দিচ্ছেন, এটা সত্যিই হতাশাজনক।’ নতুন আইন নিয়ে শঙ্কিত না হতে ভারতীয়দের আশ্বস্ত করে মোদি বলেছেন, নাগরিকত্ব সংশোধন আইন কারও নাগরিকত্ব কেড়ে নেবে না। যাঁরা অবৈধভাবে বছরের পর বছর ধরে ভারতে বাস করছেন, তাঁদের ক্ষেত্রেই এই আইন কার্যকর হবে।

নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের প্রতিবাদে রাজধানী দিল্লিসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিক্ষোভ অব্যাহত আছে। বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে মোদি বলেছেন, ‘আমি বিক্ষোভকারীদের বলতে চাই, নতুন আইন পছন্দ না হলে আপনারা আমাকে গালাগাল করতে পারেন। আমার বিরুদ্ধেও যেতে পারেন। কিন্তু জনগণের সম্পত্তি পোড়ানো বন্ধ করুন। গরিব মানুষের অটোরিকশায় আগুন দেবেন না।’

কংগ্রেসের উদ্দেশে মোদি বলেছেন, ‘সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংই একবার লোকসভায় বলেছিলেন, ধর্মীয় কারণে নির্যাতিত হয়ে যাঁরা বাংলাদেশ থেকে ভারতে এসেছেন, তাঁদের নাগরিকত্ব দেওয়া উচিত।’ মোদির এমন মন্তব্যের ঘণ্টাখানেকের মধ্যে পাল্টা টুইট করে কংগ্রেস বলেছে, ‘মনমোহন সিং কী বলেছিলেন, সেটি আরেকবার মন দিয়ে শুনুন। ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব দেওয়া উচিত, এমন কথা কি তিনি একবারও বলেছিলেন? তিনি বলেছিলেন, শরণার্থীদের প্রতি আমাদের আরও মানবিক হওয়া উচিত।’ আরেকটি টুইটে কংগ্রেস বলেছে, ‘জাত এবং ধর্মনির্বিশেষে প্রত্যেক ভারতীয় নাগরিক সিএএ এবং এনআরসি নিয়ে উদ্বিগ্ন। আইনগুলো আমাদের সংবিধান পরিপন্থী।’

নতুন এই আইনের বিরোধিতাকারীদের ‘মিথ্যাবাদী’ আখ্যা দিয়ে মোদি আরও বলেছেন, ‘আমি মিথ্যাবাদীদের জিজ্ঞেস করতে চাই, আমরা যখন অবৈধ কলোনিগুলোকে বৈধতা দিলাম, তখন কি তাঁদের ধর্ম কিংবা রাজনৈতিক মতাদর্শ জানতে চেয়েছিলাম? তাঁদের কাছে নাগরিকত্বের কোনো প্রমাণ চেয়েছিলাম? তখন তো কেন্দ্রীয় সরকারের সুবিধা হিন্দু, মুসলিম, শিখ, খ্রিষ্টান সবাই নিয়েছেন। দেশে যখন সবচেয়ে বড় স্বাস্থ্যবিমা চালু করা হলো, তখন কি কারও ধর্ম জানতে চাওয়া হয়েছিল? ভারতকে আন্তর্জাতিকভাবে লজ্জিত করতে এই যে ষড়যন্ত্র চালু হয়েছে, এটির কারণ কী? ইউনিফর্ম পরে দায়িত্ব পালন করতে গেলেই পুলিশের ওপর হামলা করা হচ্ছে।’ বৈচিত্র্যের মধ্যে একতা বজায় রাখাই ভারতের বিশেষত্ব বলেও মন্তব্য করেছেন মোদি। 


নতুন নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে ভারতজুড়ে চলা সহিংসতায় গতকাল শনিবার বিকেল পর্যন্ত অন্তত ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। কেবল উত্তর প্রদেশেই মারা গেছেন ১৫ জন। এ ছাড়া পশ্চিমবঙ্গ, আসাম, ত্রিপুরা, মধ্যপ্রদেশ, তামিলনাড়ুসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে প্রতিবাদ অব্যাহত আছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের অন্যান্য খবর
© All rights reserved © Sandhani TV
Theme Design by Hasan Chowdhury