1. aponi955@gmail.com : Apon Islam : Apon Islam
  2. mdarifpress@gmail.com : Nure Alam Siddky Arif : Nure Alam Siddky Arif
  3. hasanchy52@gmail.com : hasanchy :
  4. sandhanitv@gmail.com : Kamrul Hasan : Kamrul Hasan
  5. glorius01716@gmail.com : Md Mizanur Rahman : Md Mizanur Rahman
  6. mrshasanchy@gmail.com : Riha Chy : Riha Chy
বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন

পানি উন্নয়ন বোর্ড হচ্ছে অধিদফতর, হবে পানিসম্পদ ক্যাডার

  • প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৬৫ বার দেখা হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : ‘বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড’কে ‘বাংলাদেশ পানিসম্পদ অধিদফতর’-এ রূপান্তর করতে যাচ্ছে সরকার। এজন্য ‘বাংলাদেশ পানি সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা আইন, ২০১৯’ এর খসড়া করেছে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়। খসড়া আইনে ‘বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পানিসম্পদ)’ নামে নতুন একটি ক্যাডার গঠনের কথাও বলা হয়েছে। পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পানি উন্নয়ন বোর্ড পরিচালিত হচ্ছে ‘বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড আইন, ২০০০’ এর মাধ্যমে। পদোন্নতিসহ চাকরির ভালো সুযোগ-সুবিধা না থাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডে নিয়োগ দেয়া বেশিরভাগ প্রকৌশলীকে ধরে রাখা যায় না, মেধাবীরা আসতেও চান না। এজন্য পানিসম্পদ ক্যাডার গঠন এবং বোর্ডকে অধিদফতরে রূপান্তর করা জরুরি হয়ে পড়েছে।অধিদফতর হলে সংস্থাটির কাজে আরও গতিশীলতা আসবে বলেও মনে করছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

এ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে (পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অধিদফতর করা) একটি খসড়া আইন করেছি। যদিও এটি এখনো একেবারে প্রাথমিক পর্যায়েই আছে। এটা নিয়ে স্টেকহোল্ডারদের (সংশ্লিষ্ট) সঙ্গে কনসাল্টেশন (পরামর্শ) হবে। আরও নানা ধাপ পেরিয়ে তারপর এটি চূড়ান্ত হবে।’

তিনি বলেন, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ডে আমরা ইঞ্জিনিয়ার নিয়োগ করি, কিন্তু প্রতিবছর ৪০ শতাংশই চলে যায়। ভালো সুযোগ পেলেই চলে যায়। বোর্ডে যেহেতু পদোন্নতিসহ চাকরির অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা কম, তাই ভালো ছেলেরা আসতেও চায় না। তারা মনে করে ক্যাডার সার্ভিসে চাকরি করা প্রেস্টিজিয়াস বটে, তাই সুযোগ পেয়ে চলে যায়। সেজন্য বোর্ডের অনেক পদ সবসময়ই শূন্য থাকে।

বোর্ডকে অধিদফতরে রূপান্তরের উদ্যোগের এটাই প্রধান কারণ বলে জানান কবির বিন আনোয়ার।

সচিব আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ডেল্টা প্ল্যানসহ অন্যান্য পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য আমরা মনে করছি এটি অধিদফতর হলে মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সিনক্রোনাইজেশন ইত্যাদি আরও ভালো হবে। আরও নানাবিধ বিষয় নিয়ে আমরা ভাবছি, যে কারণে বোর্ডকে অধিদফতর করা হচ্ছে।’

বোর্ডের মতোই একই রকমের কাজই পানিসম্পদ অধিদফতর করবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রজেক্ট নেবে বাস্তবায়ন করবে। তবে কাজের ক্ষেত্রে পদ্ধতিগত জটিলতা কমবে এবং এটি আরও গতিশীল হবে।’

খসড়া আইন অনুযায়ী, অধিদফতরের একজন মহাপরিচালক ও সর্বোচ্চ ছয়জন অতিরিক্ত মহাপরিচালক থাকবেন। মহাপরিচালক ও অতিরিক্ত মহাপরিচালকদের নিয়োগ, পদোন্নতি এবং চাকরির শর্তাবলী সরকার নির্ধারণ করবে। মহাপরিচালক অধিদফতরের প্রধান নির্বাহী হবেন।

সার্ভিস গঠন

খসড়া আইনে বলা হয়েছে, পানিসম্পদের সমন্বিত ও টেকসই উন্নয়ন এবং দক্ষ ব্যবস্থাপনার জন্য ‘বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (পানিসম্পদ)’ নামে একটি ক্যাডার থাকবে। বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের (বিসিএস) জন্য প্রযোজ্য সব আইন ও বিধিবিধান এই ক্যাডার সার্ভিস ও এর সদস্যদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

অধিদফতরের ক্ষমতা ও দায়িত্ব

পানিসম্পদের সমন্বিত ও টেকসই উন্নয়ন এবং দক্ষ ব্যবস্থাপনার জন্য অধিদফতর সারাদেশ বা এর যে কোনো অংশে কার্যক্রম গ্রহণ করতে পারবে বলে খসড়া আইনে উল্লেখ করা হয়েছে।

অধিদফতর সরকারের অনুমোদন নিয়ে সব নদ-নদী, জলাধার ও জলাভূমি এবং ভূ-উপরিস্থ ও ভূ-গর্ভস্থ পানির ব্যবস্থাপনা; নির্মিত সব পানি ব্যবস্থাপনা অবকাঠামো পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য যথাযথ মান ও নির্দেশিকা প্রণয়ন ও প্রয়োগ; প্রয়োজনীয় কলকারখানা, মেশিন, যন্ত্রপাতি ও অন্যান্য সহায়ক সরঞ্জাম সংগ্রহের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করতে পারবে।

সরকার অনুমোদিত প্রকল্প দলিলের ভিত্তিতে প্রকল্প প্রণয়ন, বাস্তবায়ন ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট বিষয়ে পরামর্শ ও সহায়তার জন্য কোনো স্থানীয় সরকারি সংস্থা বা আন্তর্জাতিক পরামর্শক বা পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন; বন্যা ব্যবস্থাপনা, পানি নিষ্কাশন ও সেচ প্রকল্পের পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণ কাজসহ প্রকল্প বাস্তবায়ন ও বনায়ন সংক্রান্ত কাজে স্থানীয় উপকারভোগী সংগঠনের সঙ্গে চুক্তি সম্পাদন; সেচ প্রকল্পে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভূপরিস্থ পানির সুষ্ঠু ব্যবহারের মাধ্যমে উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়তা এবং সেচ ও ফসলের তথ্য উপাত্ত সংরক্ষণ ও প্রতিবেদন প্রস্তুতকরণ করবে পানিসম্পদ অধিদফতর।

এছাড়া বাংলাদেশ ‘ব-দ্বীপ পরিকল্পনা, ২১০০’ এবং সময়ে সময়ে সরকারের প্রণীত জাতীয় নীতিমালার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য অর্জনের জন্য পানিসম্পদের উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করাও অধিদফতরের দায়িত্ব।

অধিদফতরের কার্যাবলী

অধিদফতরের কাঠামোগত কার্যাবলী তুলে ধরে খসড়ায় বলা হয়, নদী ও নদী অববাহিকা ও উন্নয়ন ব্যবস্থাপনা এবং বন্যা ব্যবস্থাপনা, পানি নিষ্কাশন, সেচ ও খরা প্রতিরোধের লক্ষ্যে জলাধার, ব্যারেজ, বাঁধ, রেগুলেটর বা অন্য যে কোনো অবকাঠামো নির্মাণ; সেচ, মৎস্য চাষ, নৌ-পরিবহন, বন্য ও জলজ প্রাণী সংরক্ষণ এবং পরিবেশ ও প্রতিবেশের সার্বিক উন্নয়নে সহায়তা দিতে পানি প্রবাহের উন্নয়ন ও পানি প্রবাহের গতিপথ পরিবর্তনের জন্য জলপথ, খাল-বিল ইত্যাদি পুনঃখনন করবে অধিদফতর।

এছাড়া অধিদফতর বনায়ন ও সব ক্ষেত্রে প্রাকৃতিক পদ্ধতির প্রয়োগ; ভূ-উপরিস্থ পানির ব্যবহার নিশ্চিত করতে দেশের জলাধার উন্নয়ন ও সংরক্ষণ এবং ভূ-গর্ভস্থ পানি পুনর্ভরণ নিশ্চিতের জন্য খাল-বিল-জলাধার খনন; ভূমি সংরক্ষণ, ভূমি পরিবৃদ্ধি এবং নদীর মোহনা ব্যবস্থাপনা; নদীর তীর অসংরক্ষণ এবং নদী ভাঙন থেকে সম্ভাব্য ক্ষেত্রে শহর, হাট-বাজার, জনপথ, জনবসতি এবং ঐতিহাসিক ও জাতীয় জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহ রক্ষা করা; উপকূলীয় বাঁধ নির্মাণ, সংরক্ষণ ও রক্ষণাবক্ষেণ; লবণাক্ততার অনুপ্রবেশ রোধ ও মরুকরণ প্রশমন; সেচ, পরিবেশ, প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র সংরক্ষণ এবং পানীয় জল আহরণের লক্ষ্যে বৃষ্টির পানি ধারণ; অগভীর সমুদ্র এলাকায় জরিপ, অনুসন্ধান ও ভূমি পুনরুদ্ধারে সমীক্ষা সম্পাদন, প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন; জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব/অভিঘাত বিবেচনায় পানিসম্পদ সম্পর্কিত প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করবে।

অ-কাঠামোগত ও সহায়ক কার্যাবলীর মধ্যে বন্যা ও খরা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ; পানি বিজ্ঞান সম্পর্কিত অনুসন্ধান কার্য পরিচালনা এবং এতদসম্পর্কিত তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও বিতরণ; পরিবেশ, প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ এবং উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থার সহযোগিতায় এবং সম্ভাব্য ক্ষেত্রে অধিদফতরের সৃষ্ট অবকাঠামোভুক্ত নিজস্ব জমিতে বনায়ন, মৎস্য চাষ কর্মসূচি বাস্তবায়ন এবং বাঁধের ওপর রাস্তা নির্মাণ; অধিদফতরের কার্যাবলীর ওপর মৌলিক ও প্রায়োগিক গবেষণা; অধিদফতরের বাস্তবায়িত প্রকল্পের সুফল সংশ্লিষ্ট সুবিধাভোগীদের মধ্যে স্থানীয় জনগণ ও জনপ্রতিনিধিদের সংগঠিতকরণ এবং সম্পৃক্তকরণ, প্রকল্পে তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা, প্রকল্প রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচালন এবং প্রকল্প ব্যয় পুনরুদ্ধার সংক্রান্ত বিভিন্ন কলাকৌশল ও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো উদ্ভাবন, বাস্তবায়ন ও পরিচালনা করবে পানিসম্পদ অধিদফতর।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের অন্যান্য খবর
© All rights reserved © Sandhani TV
Theme Design by Hasan Chowdhury