1. aponi955@gmail.com : Apon Islam : Apon Islam
  2. mdarifpress@gmail.com : Nure Alam Siddky Arif : Nure Alam Siddky Arif
  3. hasanchy52@gmail.com : hasanchy :
  4. sandhanitv@gmail.com : Kamrul Hasan : Kamrul Hasan
  5. glorius01716@gmail.com : Md Mizanur Rahman : Md Mizanur Rahman
  6. mrshasanchy@gmail.com : Riha Chy : Riha Chy
সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:৪১ অপরাহ্ন

আশুলিয়ায় সৎ মাকে কুপিয়ে হত্যা

  • প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১২৯ বার দেখা হয়েছে

আশুলিয়া প্রতিনিধি : আশুলিয়ায় এক পোশাক কারখানার কর্মকর্তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তানদের রোষাণল ও পারিবারিক কলহের জেরে সৎ মা শেলি সুলতানা (৪৩) কে কুপিয়ে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনায় হত্যা করতে আসা দ্বিতীয় স্ত্রী মিনা বেগমের মেয়ে সানজিদা আক্তার (১৯) কে হাতে নাতে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা। হত্যা মিশনে অংশ গ্রহণকারি অপর সদস্যরা জনতার ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনায় স্বামী টিপু সুলতান বাদি হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা রুজু করেছেন।

রোববার দিবাগত রাত পৌনে ১০টায় আশুলিয়ার দক্ষিণ বাইপাইল (চারালপাড়া) এলাকার টিপু সুলতানের বাড়িতে এ হত্যার ঘটনা ঘটে।

নিহত শেলি আশুলিয়ার ছয়তলা স্টালির্ং এ্যাপারেলস এর উৎপাদন কর্মকতা টিপু সুলতানের প্রথম স্ত্রী। সে দক্ষিণ বাইপাইল এলাকায় জমি কিনে বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করতেন। টিপু সুলতান কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর থানাধীন গোপালপুর নওদা এলাকার মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে। ঘটনার সময় টিপু সুলতান কুষ্টিয়া তার গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করতে ছিলেন। তিনি ৩টি বিয়ে করে সংসার পরিচালনা করছেন। তিন সংসারেই ছেলে-মেয়ে রয়েছে। প্রথম স্ত্রীর ছেলে সবুজ সুলতান ভার্সিটিতে লেখা পড়া করে। মেয়ে সাথী বিবাহিত। শেলি ছেলেকে নিয়েই দক্ষিণ বাইপাইল এলাকার ওই বাড়িতে বাস করতেন। স্বামী টিপু সুলতান মাঝে মাঝে ওই বাড়িতে আসতেন।

এ ব্যাপারে বাদি টিপু সুলতান এজাহারে উল্লেখ করেন, তিনি তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়া অবস্থান করছিলেন। রোববার রাত সোয়া ১০টায় মোবাইলের মাধ্যমে তার ছেলে সবুজ সুলতান জানায়, তার মা মারা গেছেন। তিনি পরেরদিন সোমবার সকালে আশুলিয়ার দক্ষিণ বাইপাইল এলাকার তার বাড়িতে যান। সেখানে তার ছেলে ও প্রতিবেশিদের মাধ্যমে জানতে পারেন রাত আনুমানিক পৌনে ১০টায় তার ছেলে সবুজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাসায় আসে। বাড়িতে ঢুকে অন্ধকার দেখতে পান। ঘরের ভিতর ঢুকতেই তার ছেলেকে পিছন থেকে মুখ চেপে ধরে। সে এ অবস্থা সামলিয়ে ডাক-চিৎকার করলে প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসে। এসময় আক্রমণকারিরা দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এলাকাবাসী চোর চোর বলে চিৎকার করে দৌঁড়ে এক নারীকে ধরে ফেলেন। আটক ওই নারী তারই দ্বিতীয় স্ত্রী মিনা বেগমের মেয়ে সানজিদা আক্তার। উক্ত সানজিদাসহ অজ্ঞাতনামা আরো একজনকে বিবাদী করে থানায় মামলা করেছেন তিনি।

ছেলে সবুজ বলেন, তার মায়ের মাথার পিছনের ডান পাশে ফুলা জখমসহ পেটের বাম পাশে ধারাল অস্ত্রের আঘাতের কাটা রক্তাক্ত জখমের চিহ্ন রয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হয়ে তার মায়ের লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করেন এবং লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা মর্গে প্রেরণ করেছে। পূর্বপরিকল্পিতভাবে আটক আসামী ও অজ্ঞাতনামা আসামীরা পরষ্পর যোগসাজসে ধারাল অস্ত্র দিয়ে পেটে ও মাথায় গুরুতর আঘাতের মাধ্যমে অথবা শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করেছে।

জানতে চাইলে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক নুরুল হুদা বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তত করি এবং লাশটি ময়না তদন্তের জন্য মেডিকেলে প্রেরণ করি। ঘটনায় জনতার হাতের আটক এক নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে হত্যায় অংশ নেয়া বাকি আসামীদের আটক করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও তিনি জানান।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের অন্যান্য খবর
© All rights reserved © Sandhani TV
Theme Design by Hasan Chowdhury