উয়েফার নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই আইনি লড়াইয়ে নেমে পড়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। বৃটিশ দৈনিক ডেইলি মিরর জানিয়েছে, যুক্তরাজ্যের সেরা আইনজীবীদের একজন ডেভিড প্যানিক কিউসিকে নিয়োগ দিয়েছে ক্লাবটি। দু’বার ব্রেক্সিট আটকে দিয়েছিলেন তিনি। হাইপ্রোফাইল এই উকিলকে ভাড়া করতে দৈনিক ২০ হাজার বৃটিশ পাউন্ড খরচ হবে ম্যান সিটির। বাংলাদেশি মুদ্রায় যেটি ২২ লাখ টাকারও বেশি।

৬৩ বছর বয়সী ডেভিড প্যানিক ব্রেক্সিট ইস্যুতে ইংল্যান্ডের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র বিরুদ্ধে বৃটিশ অ্যাক্টিভিস্ট জিনা মিলারের হয়ে লড়েন। ২০১৬তে থেরেসা মে’র ইংল্যান্ডকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে বের আনার পরিকল্পনা আটকে দেন মিস্টার প্যানিক। মে’র পদত্যাগের পর প্রধানমন্ত্রী হন বরিস জনসন। ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের জন্য উঠে পড়ে লাগেন তিনি।

তিনিও মিলারের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েন। মামলায় জনসনের বিরুদ্ধে একবার জিতলেও চলতি বছরের ১লা ফেব্রুয়ারি ব্রেক্সিট কার্যকর হয়। ৪৭ বছর পর ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ছেড়ে বেরিয়ে যায় ইংল্যান্ড।

 আর্থিক অনিয়মের কারণে গত শুক্রবার ইউরোপিয়ান আসরে ম্যান সিটিকে দুই মৌসুমের জন্য নিষিদ্ধ করে উয়েফা। নিষেধাজ্ঞা নোটিশ পাওয়ার পরই ইংলিশ জায়ান্টরা জানায় খেলাধুলা বিষয়ক উচ্চ আদালতে (সিএএস) আপিল করবে তারা।