1. aponi955@gmail.com : Apon Islam : Apon Islam
  2. mdarifpress@gmail.com : Nure Alam Siddky Arif : Nure Alam Siddky Arif
  3. hasanchy52@gmail.com : hasanchy :
  4. sandhanitv@gmail.com : Kamrul Hasan : Kamrul Hasan
  5. glorius01716@gmail.com : Md Mizanur Rahman : Md Mizanur Rahman
  6. mrshasanchy@gmail.com : Riha Chy : Riha Chy
বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:১৮ অপরাহ্ন

লকডাউনে দুর্ধর্ষ ডাকাতি ঈদ সামনে রেখে আতঙ্ক

  • প্রকাশ: বুধবার, ১৩ মে, ২০২০
  • ১৪০ বার দেখা হয়েছে

লকডাউন। বেশ ফাঁকা ব্যস্ততম রাজধানী ঢাকার সড়ক। অপরাধের পরিসংখ্যান কমলেও ঘটছে দুর্ধর্ষ ছিনতাই-ডাকাতির ঘটনা। লকডাউনের আগের কয়েক মাসের হিসেবেও এরকম ঘটনা তেমন নেই। নিরব-নির্জন সড়কে ছিনতাই-ডাকাতির ঘটনা ঘটছে প্রায়ই। এরমধ্যে বেশ কয়েকজন ছিনতাইকারী গ্রেপ্তারও হয়েছে পুলিশের অভিযানে। ছিঁচকে চোররাও লকডাউনে বেপরোয়া হয়ে ডাকাতির মতো ঘটনা ঘটাচ্ছে। গুলি করে, অস্ত্র দেখিয়ে জিম্মি করে, মারধর করে দিনদুপুরে ছিনিয়ে নিচ্ছে বিপুল টাকা।

আবার কৌশলে নিরবে নিয়ে যাচ্ছে কোটি টাকা। নানা কৌশলে ঘটছে ছিনতাইয়ের এসব ঘটনা। এসব ঘটনায় ঈদ সামনে রেখে আতঙ্ক বেড়েছে। কারণ এই সময়ে নগদ অর্থের আদান প্রদান বেড়ে যায়।

গত রোববার সায়দাবাদের জনপদ মোড়ে গুলি করে ডাচ বাংলা ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং’র ৫৫ লাখ ৬৯ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর তদন্ত নামে পুলিশ ও গোয়েন্দারা। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, যাত্রাবাড়ী থানা ভবন ও জনপথমোড় এলাকার তিনটি সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। ফুটেজ দেখে ছিনতাইকারীদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে। যদিও ছিনতাইকারীরা ঘটনার সময় মাস্ক ও হেলমেট ব্যবহার করেছে। এছাড়াও কয়েকজন পেশাদার ছিনতাইকারীকে টার্গেট করে মামলাটি তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

ঘটনার দিন সকাল ১১টা। কাজলা বৌবাজারের ডাচ বাংলা ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং থেকে টাকা নিয়ে মতিঝিলে যাচ্ছিলেন দুই ভাই সবুজ ও মুকুল। তারা যাত্রাবাড়ী থানার পাশ দিয়ে যখন মোটরসাইকেলে যাচ্ছিলেন। ওই সময়েই দুটি মোটরসাইকেলযোগে চার জন তাদের অনুসরণ করতে থাকে। জনপদ  মোড়ে ছিনতাইকারীরা তাদের গতিরোধ করে। এসময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে। সেইসঙ্গে দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে। চিৎকার শুনে লোকজন এগিয়ে আসার আগেই ছিনতাইকারীরা টাকার ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায়।
যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনাকে গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে থানা পুলিশ ছাড়াও গোয়েন্দারা কাজ করছে। আশা করছি, শিগগিরই জড়িতদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে।

একই দিনে পুরান ঢাকার ইসলামপুরে ন্যাশনাল ব্যাংকের ৮০ লাখ টাকা খোয়া গেছে। এ ঘটনায়ও জড়িত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। সূত্রে জানা গেছে, শুরুতে টাকা বহনকারীদের সন্দেহ করা হলেও সিসি টিভির ফুটেজ দেখে তদন্ত ভিন্নদিকে মোড় নেয়। তদন্ত অনুসারে সংঘবদ্ধ একটি চক্র এ ঘটনায় জড়িত। পুলিশ জানিয়েছে, টাকা বহনকারী গাড়ি পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকার ন্যাশনাল ব্যাংকের শাখা থেকে টাকা সংগ্রহ করছিলো। এ সময় গাড়িতে ব্যাংকের দুইজন অস্ত্রধারী নিরাপত্তাকর্মী, একজন এক্সকিউটিভ অফিসার ও গাড়ির চালক ছিলেন। বিভিন্ন শাখা থেকে টাকা সংগ্রহ করে ইসলামপুর শাখা থেকে টাকা নিয়ে গাড়িতে তোলা হয় দুপুরে। এসময় টাকার গাড়িতে রেখে আরও একবার ব্যাংকে যান গাড়িতে থাকা অস্ত্রধারী নিরাপত্তাকর্মী, এক্সকিউটিভ অফিসার। ওই সময়ে গাড়ি থেকে টাকা নিয়ে চক্রের সদস্যরা। কৌশলে দ্রুত এই কাজটি করে। এরপরই গাড়ি মতিঝিলে ব্যাংকটির প্রধান কার্যালয়ের দিকে যায়। কিছুক্ষণ আসার পরই গাড়িতে থাকা নিরাপত্তা কর্মীরা চিৎকার দিয়ে ওঠেন, টাকার একটি বস্তা পাওয়া যাচ্ছে না। তাতে ৮০ লাখ টাকা ছিল। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ থানায় অভিযোগ করেন। এরপরই টাকা বহনকারী গাড়িতে থাকা চারজনকেই আটক করে কোতয়ালী থানায় নেয়া হয়। কিন্তু এতে এখন পর্যন্ত তাদের কোনো সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি। পুলিশের লালবাগ বিভাগের উপ পুলিশ কমিশনার মুনতাসিরুল ইসলাম মানবজমিনকে জানান, সিসি টিভির ফুটেজ দেখে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এটি একটি চুরির ঘটনা। দ্রুততার সঙ্গে কৌশলে এটি করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

গত ১২ই এপ্রিল ছিনতাইকারী চক্রের পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করেছিলো ডিবি পুলিশ। এই চক্রটি লকডাউনের মধ্যে মোহাম্মদপুরের বিল্লাল ফার্মা ও খিলগাঁওয়ের লাজ ফার্মায় ডাকাতির ঘটনায় জড়িত। এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার শাহদাত হোসেন সোমা জানান, চক্রটি পেশাদার ডাকাত-ছিনতাইকারী চক্রের সদস্য। একসময় তারা কাওরান বাজার এলাকায় সবজি চুরি করতো। সম্প্রতি তারা বেপরোয়া হয়ে উঠে। চুরির পাশাপাশি তারা ডাকাতি ও ছিনতাই করছিলো।

গত ১লা এপ্রিল রাতে মোহাম্মদপুরের কলেজগেট এলাকার বিল্লাল ফার্মায় ডাকাতি করে চক্রটি। একইভাবে গত ৫ই এপ্রিল খিলগাঁওয়ের লাজ ফার্মায় ডাকাতির ঘটনা ঘটে। একই কায়দায় দুটি ডাকাতি করে এই চক্র। চক্রের সদস্যরা একটি পিকআপে করে মুখে মাস্ক ও গামছা পেঁচিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে। ফার্মেসিতে ঢুকে মারধর করে। চাপাতি, রামদার দেখিয়ে জিম্মি করে নগদ টাকা, মোবাইল ও ল্যাপটপ নিয়ে যায়। গত ১০ই এপ্রিল রামপুরা এলাকার একটি ভ্যান থেকে ২০ কার্টন চিংড়ি মাছ ছিনতাই করে নিয়ে যায়। একই দিন বাড্ডা এলাকায় একটি রিকশা থামিয়ে এক ব্যক্তির সর্বস্ব ছিনিয়ে নেয় এই চক্র। গ্রেপ্তারকৃত চক্রের সদস্যরা হচ্ছে, সোহেল (৩৫), সোহরাব (৩০), নেওয়াজ (২২), শাহীন (২৫) ও রাজু (২৫)। দুটি পিকআপও ডাকাতি করেছিলো তারা। ওই পিকআপ দুটি ডাকাতির কাজে ব্যবহার করতো তারা।
এসব বিষয়ে ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশে উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান বলেন, ছিনতাই প্রতিরোধে পুলিশের টহল বাড়ানো হয়েছে। ছিনতাইকারীদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের অন্যান্য খবর
© All rights reserved © Sandhani TV
Theme Design by Hasan Chowdhury