মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ০৯:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ব্রেকিং নিউজ :
সাত বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় তিন ধরনের প্রতিবেদনে গরমিল পাওয়ায় অসন্তোষ জানিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন, সংশ্লিষ্ট চিকিৎসক ও পুলিশ সুপারসহ (এসপি) সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তাকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আসামির জামিনের শুনানি নিয়ে রোববার (১৭ জানুয়ারি) বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও কে এম জাহিদ সারওয়ারের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আজ জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. শাহপরান চৌধুরী। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মনিরুল ইসলাম। সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মনিরুল ইসলাম আদেশের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন।

আশুলিয়ায় মসজিদ কমিটির সাথে বিরোধ ইমামের মিথ্যাচার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

সাভার প্রতিনিধি-আশুলিয়ার খেজুরবাগান জামে মসজিদের সাবেক ইমাম ও খতিব
মুফতি মাসুদ মোস্তফা ও মসজিদ কমিটির সদস্য মজিবুর
এবং আশরাফ উদ্দিন মাদবর উভয়ের বিরুদ্ধে পাল্টাপালটি অভিযোগ উঠেছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে। গণমাধ্যমকে মুফতি মাসুদ মোস্তফা বলেন, আমি মসজিদুন নুর জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব থাকার সময় আশরাফ উদ্দিন মাদবরের সাথে আমার বিরোধ হয় এবং আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। বিষয় টি আমি উনার বড় ভাই আশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন মাদবরকে জানাই,এতে আমি কোন সঠিক বিচার পাইনি। পরে আমি নিরুপায় হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি জিডি করি আমার জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে।
ঘটনার সুত্রপাত হয় মসজিদের টাকার হিসেব নিয়ে,মসজিদ কমিটির সদস্য মজিবুরের সাথে। একপর্যায়ে আশরাফ উদ্দিন মাদবর এতে জড়িয়ে পড়েন। আর এতেই দুজনের মাঝে বিরোধ শুরু হয়,কারণ মজিবুর আশরাফ উদ্দিন মাদবরের ভগ্নিপতি। বিষয়টি আশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন মাদবরের কাছে জানতে চাইলে,উনি আমাদের কে বলে দেখুন মুফতি মাসুদ মোস্তফা যখন মসজিদুন নুর এর ইমাম ও খতিব ছিল তখন তার সাথে কি বিষয় নিয়ে বিরোধ হয়,সেটা তো আমার জানার কথা না। কারণ আমি মসজিদ কমিটির কেউ না। তবে কি কারণে মুফতি সাহেব আমার নামে মিথ্যাচার করছেন বিষয়টি আমি বুঝতে পারলামনা। তবে আমি একটি কথাই বলবো, আমার এলাকার জনগণের দোয়া ও ভালবাসায় আজ আমি চেয়ারম্যান।আমার এলাকার জনগণ জানে কোনটা সত্য আর কোনটা মিথ্যা। পরিশেষে আমি একটি কথাই বলবো জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে উন্নয়নের অগ্রযাত্রায়। তার সাথে সাথে আমার আশুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদকে যেন একটি আধুনিক ইউনিয়ন হিসেবে বাংলাদেশের মানুষ চিনতে পারে সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। মুফতি মাসুদ মোস্তফা সাহেব কে আমি বলতে চাই, মিথ্যাচার বন্ধ করুন, সত্যের পথে আসুন। কারণ সত্যের জয় হবেই হবে, ইনশাআল্লাহ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page

প্রযুক্তি সহায়তায় Freelancer Zone