ঢাকা ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
ঢাকা -১৯-আসনের সংসদসদস্যের নির্দেশনায় এইচ বিবি করন রাস্তা সংস্কার কাজ নির্মাণ শুরু করলেন আশুলিয়া থানা যুবলীগের ভবিষ্যৎ কান্ডারী দেওয়ান রাজু আহমেদ সাতক্ষীরা কিন্ডারগার্টেনের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত” সাভার উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে ৬৫ তম ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চান হাজী মোঃ মোশাররফ খান একজন পরিশ্রমী জনবান্ধব ইউপি সচিব শরীফুজ্জামান বিপুল ভোটে ঢাকা ১৯ এর সাংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেন মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম সাভারের আশুলিয়ায় নির্বাচন বন্ধে বিএনপি’র লিফলেট বিতরণ সাভারে নির্বাচনের হালচাল সাভারে ইউসুফ আলী চুন্নুর নেতৃত্বে ঈগল মার্কার পক্ষে নির্বাচনী গনসংযোগ জনসমুদ্রে পরিনত

বিপুল ভোটে ঢাকা ১৯ এর সাংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেন মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম

মোঃ সাগর হোসেনঃ
  • আপডেট সময় : ১১:২১:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৪ ১৫১ বার পড়া হয়েছে
sandhanitv অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি


সবাইকে চমক দেখিয়ে বিপুল ভোটে নয়া সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন ট্রাক প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা- ১৯ (সাভার -আশুলিয়া) আসনে সা‌বেক ও বর্তমান দুই হে‌ভিও‌য়েটকে বৃদ্ধাঙ্গু‌লি দে‌খি‌য়ে ম‌্যা‌জিক দে‌খি‌য়ে‌ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ম্যাজিকম্যান খ‌্যাত মোঃ সাইফুল ইসলাম।

তিনি আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। স্বনির্ভর ধামসোনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করে সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। বর্তমান সংসদ সদস্য, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এবং সাবেক সংসদ সদস্য তালুকদার মোঃ তৌহিদ জং মুরাদকে ধরাশায়ী করে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। রবিবার (৭ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটাধিকার প্রয়োগের পর সাভার উপজেলা চত্বরে ফল প্রকাশ করেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌস ওয়াহিদ।

বেসরকারিভাবে ঘোষিত ফলাফলে ২৯২ কেন্দ্রের সর্বশেষ হিসেবে তিনি বিজয়ী হয়েছেন। পৌর এলাকায় তার ফলাফল সন্তোষজনক না হলেও পাথালিয়া, শিমুলিয়া ও ধামসোনা ইউনিয়নের প্রাপ্ত ভোট তার বিজয় নিশ্চিত করেছে। সাইফুল ইসলামের এই নির্বাচনে পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এবং ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তার সঙ্গে ছিলেন। দলের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নেতৃবৃন্দ তার সঙ্গে না থাকলেও পোশাক শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তার পাশে ছিলেন শুরু থেকেই। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে না পেয়েও তিনি হতাশ হননি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নিজেকে তুলে ধরেছেন ভোটারদের কাছে। নির্বাচনে ট্রাক প্রতীক নিয়ে সাইফুল ইসলামের প্রাপ্ত ভোট ৮৪ হাজার ৪১২ ভোট। এছাড়া ডা. এনামুর রহমানের নৌকা ৫৬ হাজার ৩৬১ ভোট, মুরাদ জংয়ের ঈগল ৭৬ হাজার ২০২ ভোট পেয়েছে। ৮ হাজারের অধিক ভোটে বিজয়ী হয়েছেন সাইফুল ইসলাম। সাইফুলের এই বিজয়ের পর ঘনিষ্ঠরা তাকে ‘ম্যাজিকম্যান’ আখ্যা দিয়েছেন।

এছাড়া এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আরও সাতজন। তারা সবাই জামানত হারিয়েছেন। এদের মধ্যে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির কাঁঠাল প্রতীক নিয়ে আইরিন পারভীন ১৩৩ ভোট, গনফ্রন্টের মাছ প্রতীক নিয়ে নুরুল আমীন ১১৩ ভোট, তৃনমুল বিএনপির সোনালী আঁশ প্রতীক নিয়ে মাহাবুবুল হাসান ২৮০ ভোট, বাংলাদেশ কংগ্রেসের ডাব প্রতীক নিয়ে মিলন কুমার ভঞ্জ ১৮৪ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আমি প্রতীক নিয়ে ইসরাফিল হোসেন সাভারী ৫৬৫ ভোট, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির একতারা প্রতীক নিয়ে মোঃ জুলহাস ১৬৯ ভোট ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের নোঙর প্রতীক নিয়ে সাইফুল ইসলাম মেম্বার পেয়েছেন ১৪০ ভোট।

ঢাকা-১৯ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৭ লাখ ৫৬ হাজার ৪১৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৪৬৮ জন ও নারী ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৬৮ হাজার ৯৩৫। এছাড়া তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার সংখ্যা ১৩ জন। এসব ভোটারদের মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ২ লাখ ২২ হাজার ৬৫০ জন। এরমধ্যে বাতিল হয়েছে ৪ হাজার ৯১ ভোট। বৈধ ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ১৮ হাজার ৫৫৯ ভোট।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

বিপুল ভোটে ঢাকা ১৯ এর সাংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেন মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম

আপডেট সময় : ১১:২১:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৪


সবাইকে চমক দেখিয়ে বিপুল ভোটে নয়া সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন ট্রাক প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা- ১৯ (সাভার -আশুলিয়া) আসনে সা‌বেক ও বর্তমান দুই হে‌ভিও‌য়েটকে বৃদ্ধাঙ্গু‌লি দে‌খি‌য়ে ম‌্যা‌জিক দে‌খি‌য়ে‌ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ম্যাজিকম্যান খ‌্যাত মোঃ সাইফুল ইসলাম।

তিনি আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। স্বনির্ভর ধামসোনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করে সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন। বর্তমান সংসদ সদস্য, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান এবং সাবেক সংসদ সদস্য তালুকদার মোঃ তৌহিদ জং মুরাদকে ধরাশায়ী করে তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। রবিবার (৭ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটাধিকার প্রয়োগের পর সাভার উপজেলা চত্বরে ফল প্রকাশ করেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌস ওয়াহিদ।

বেসরকারিভাবে ঘোষিত ফলাফলে ২৯২ কেন্দ্রের সর্বশেষ হিসেবে তিনি বিজয়ী হয়েছেন। পৌর এলাকায় তার ফলাফল সন্তোষজনক না হলেও পাথালিয়া, শিমুলিয়া ও ধামসোনা ইউনিয়নের প্রাপ্ত ভোট তার বিজয় নিশ্চিত করেছে। সাইফুল ইসলামের এই নির্বাচনে পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এবং ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তার সঙ্গে ছিলেন। দলের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নেতৃবৃন্দ তার সঙ্গে না থাকলেও পোশাক শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তার পাশে ছিলেন শুরু থেকেই। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে না পেয়েও তিনি হতাশ হননি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নিজেকে তুলে ধরেছেন ভোটারদের কাছে। নির্বাচনে ট্রাক প্রতীক নিয়ে সাইফুল ইসলামের প্রাপ্ত ভোট ৮৪ হাজার ৪১২ ভোট। এছাড়া ডা. এনামুর রহমানের নৌকা ৫৬ হাজার ৩৬১ ভোট, মুরাদ জংয়ের ঈগল ৭৬ হাজার ২০২ ভোট পেয়েছে। ৮ হাজারের অধিক ভোটে বিজয়ী হয়েছেন সাইফুল ইসলাম। সাইফুলের এই বিজয়ের পর ঘনিষ্ঠরা তাকে ‘ম্যাজিকম্যান’ আখ্যা দিয়েছেন।

এছাড়া এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আরও সাতজন। তারা সবাই জামানত হারিয়েছেন। এদের মধ্যে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির কাঁঠাল প্রতীক নিয়ে আইরিন পারভীন ১৩৩ ভোট, গনফ্রন্টের মাছ প্রতীক নিয়ে নুরুল আমীন ১১৩ ভোট, তৃনমুল বিএনপির সোনালী আঁশ প্রতীক নিয়ে মাহাবুবুল হাসান ২৮০ ভোট, বাংলাদেশ কংগ্রেসের ডাব প্রতীক নিয়ে মিলন কুমার ভঞ্জ ১৮৪ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আমি প্রতীক নিয়ে ইসরাফিল হোসেন সাভারী ৫৬৫ ভোট, বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির একতারা প্রতীক নিয়ে মোঃ জুলহাস ১৬৯ ভোট ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের নোঙর প্রতীক নিয়ে সাইফুল ইসলাম মেম্বার পেয়েছেন ১৪০ ভোট।

ঢাকা-১৯ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৭ লাখ ৫৬ হাজার ৪১৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৪৬৮ জন ও নারী ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৬৮ হাজার ৯৩৫। এছাড়া তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার সংখ্যা ১৩ জন। এসব ভোটারদের মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ২ লাখ ২২ হাজার ৬৫০ জন। এরমধ্যে বাতিল হয়েছে ৪ হাজার ৯১ ভোট। বৈধ ভোটের সংখ্যা ২ লাখ ১৮ হাজার ৫৫৯ ভোট।